১০ হাজার নারী হাদিসবিশেষজ্ঞের জীবনী নিয়ে ৪৩ খণ্ডের গ্রন্থ প্রকাশ

240

ইসলামের ইতিহাসে বর্ণিত ১০ হাজারের বেশি নারী হাদিস বিশেষজ্ঞদের অবদান নিয়ে ৪৩ খণ্ডে ঐতিহাসিক গ্রন্থ প্রকাশ পেয়েছে। দীর্ঘ ১৫ বছর গবেষনা করে ‌‘আল ওয়াফা বি আসমাইন নিসা’ নামের সুবিশাল গ্রন্থটি রচনা করেন ভারতীয় আলেম ক্যামব্রিজ ইসলামিক কলেজের প্রধান ড. মুহাম্মাদ আকরাম নদভি।

Advertisement

গতকাল বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) লেখকের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে গ্রন্থটি প্রকাশের কথা জানানো হয়।

সৌদি ভিত্তিক প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান দারুল মিনহাজ এক টুইট বার্তায় জানায়, গ্রন্থটি সৌদি আরবের জেদ্দাস্থ কিং ফাহাদ রোডে দারুল মিনহাজ প্রকাশনীর প্রদর্শনীতে পাওয়া যাবে।

ভারতের বিশ্ববিখ্যাত ইসলামী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দারুল উলুম নদওয়াতুল উলামা লক্ষৌর সাবেক শিক্ষক, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর ইসলামিক স্টাডিজের সাবেক গবেষক, ক্যামব্রিজ ইসলামিক কলেজের ডিন ও আস সালাম ইনস্টিটিউটের প্রিন্সিপাল ড. আকরাম নদভি দীর্ঘ ১৫ বছর বিভিন্ন দেশের পাণ্ডুলিপি গবেষণা করে এ অনবদ্য গ্রন্থ রচনা করেন।

‌‘আল ওয়াফা বি আসমাইন নিসা’ নামের সুবিশাল গ্রন্থে ইসলামের সূচনাকাল থেকে বিভিন্ন যুগে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে হাদিসের অধ্যয়ন, অধ্যাপনা ও হাদিসের ‘ইজাজাত’ (হাদিস বর্ণনার অনুমোদন) গ্রহণ ও প্রদানে নিয়োজিত নারী মুহাদ্দিসদের সম্পর্কে আলোচনা করা হয়। এর আগে ২০১৩ সালে গ্রন্থটির সাড়ে তিন শ পৃষ্ঠার ভূমিকা ‘আল মুহাদ্দিসাত : দ্য উইম্যান স্কলারস ইন ইসলাম’ নামে ইংরেজিতে প্রকাশিত হয়। তা পুরো বিশ্বের গবেষক ও পাঠক মহলে বেশ সাড়া জাগায়।

মুসলিম নারীদের নিয়ে যেভাবে লেখা শুরু : ১৯৮৯ সালে বিশ্ববরেণ্য ইসলামী চিন্তাবিদ আল্লামা আবুল হাসান আলি নদভি (রহ.)-এর বিশেষ অনুরোধে ড. আকরাম নদভি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অক্সফোর্ড সেন্টার ফর ইসলামিক স্টাডিজের রিসার্চ ফেলো হিসেবে যোগ দেন। অক্সফোর্ড এসে একদিন বিখ্যাত টাইম ম্যাগাজিনে নারীদের শিক্ষায় ইসলাম বাধা দেয় বলে একটি প্রবন্ধে পড়েন। তা ড. নদভির অন্তরে বেশ দাগ কাটে।

ড. নদভি বলেন, ‘হাদিস বর্ণনাকারী অনেক নারীদের জীবনী সম্পর্কে আমি অবগত ছিলাম। আমি তাদের জীবনী সংকলন শুরু করি। ইসলাম নিয়ে বিখ্যাত পবিত্রকার মিথ্যাচার রোধে এক-দুই খণ্ডে তা শেষ করার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু সৌদি, সিরিয়া, মরক্কো, ভারত ও তুরস্কসহ বিভিন্ন দেশে গিয়ে এ বিষয়ে অগণিত প্রাচীন পাণ্ডুলিপি সম্পর্কে জানতে পারি। তাই ভাবলাম এ বিষয়ে আরো ব্যাপক পরিসরে কাজ করা জরুরি।’

আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত ‘মুসলিম সমাজে শান্তির প্রসার’ শীর্ষক সম্মেলনে সৌদি ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম আল ওয়াতান-কে ড. নদভি বলেন, ‘গ্রন্থটিতে হাদিসের শ্রবণ, ইজাজাত, বর্ণনা ও রচনায় মহানবী মুহাম্মাদ (সা.) থেকে আধুনিককাল পর্যন্ত ‍মুসলিম নারী মুহাদ্দিসদের নিয়ে আলোকপাত করা হয়।’

ড. নদভি আরো বলেন, ‘ইসলামের সোনালি যুগের মতো এ যুগের নারীরাও যেন শিক্ষা, অধ্যয়ন ও গবেষণায় ব্রতী হন মূলত এ উদ্দেশ্যেই গ্রন্থটি লিখিত। পাশাপাশি মুসলিম নারীরা নিপীড়িত ও নির্যাতিত বলে প্রাচ্যবিদদের অপপ্রচারের জবাব হিসেবে আড়ালে থাকা ইতিহাস তুলে ধরা হয়।’

ড. মুহাম্মাদ আকরাম নদভী ১৯৬৪খ্রি./১৩৮২ হি. সালে ভারতের উত্তর প্রদেশের জৌনপুরে জন্মগ্রহণ করেন। ১৪০১ হিজরিতে তিনি লক্ষৌর বিশ্ববিখ্যাত দারুল উলুম নদওয়াতুল উলামা থেকে ‘আলামিয়া’ ডিগ্রি অর্জন করেন। অতঃপর সেখানে শিক্ষকতার পাশাপাশি লক্ষৌ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক এভং আরবি ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতকোত্তর ও পিএইচডি ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। সব সময় তিনি ছিলেন ক্লাসের সর্বকনিষ্ঠ শিক্ষার্থী। তবে সব সময়ই তিনি ক্লাসে প্রথম স্থান অধিকার করতেন। এছাড়া তিনি সৌদি আরবের কিং সাউদ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক প্রশিক্ষণ কোর্সেও অংশগ্রহণ করেন।

বিশ্ববিখ্যাত ইসলামী চিন্তাবিদ ও দায়ি আল্লামা আবুল হাসান আলি নদভি ও সিরিয়ার বিখ্যাত মুহাদ্দিস আবদুল ফাত্তাহ আবু গুদ্দাহ ও মিশরের ড. ইউসুফ আল কারাজাবি, আল্লামা আবদুর রশিদ নুমানিসহ প্রায় পাঁচ শতাধিক বিখ্যাত আলেমদের কাছে আকরাম নদভী হাদিসের ‘ইজাজত’ গ্রহণ করেন।

১৪০৪ হিজরিতে আকরাম নদভী নদওয়াতুল উলামায় চার বছর শিক্ষকতা শুরু করেন। এরপর ১৯৯১ সালে আবুল হাসান আলি নদভী তাঁকে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষক হিসেবে পাঠান। এরপর ২০১৩ সাল থেকে ক্যামব্রিজ ইসলামিক কলেজের ডিন ও আস সালাম ইনস্টিটিউটের প্রিন্সিপাল হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেনন।

ড. মুহাম্মাদ আকরাম নদভি আরবি, উর্দু ও ইংরেজিতে ৩০ টির বেশি গ্রন্থ রচনা করেন।

ইংরেজিতে তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থাবলির মধ্যে আছে, দ্য গোল্ডেন রুল অব ডিফারিং, আল ফিকহ আল ইসলামি, জার্নি টু আন্দালুস, বুস্তান আল মুহাদ্দিসিন, উসুলুস শাশি, মাদরাসা লাইফ : অ্যা স্টুডেন্টস লাইফ এট নদওয়াতুল উলামা, লিসন্স লার্নড : ট্রেজার্স ফ্রম নাদওয়াস সেজেস, ইফ দ্য ওয়েশেন্স উইয়ার ইন্ক : এন আনলাইকলি ফ্রেইন্ডশিপ অ্যান্ড অ্য জার্নি টু দ্যা হার্ট অব দ্য কুরআন, আবু হানিফা : হিজ লাইফ,

লিগ্যাল ম্যাথড এন্ড লিগ্যাসি, আল মুহাদ্দিসাত : দ্য উইম্যান স্কলারস ইন ইসলাম, মাবাদি ফি উসুলুল ফিকহ, মাবাদি ফি উসুল আল হাদিস ওয়াল ইসনাদসহ ইত্যাদি।

সূত্র : আল ওয়াতান, ক্যামব্রিজ ইসলামিক কলেজ ওয়েবসাইট ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম

Advertisement