অভিষেকে মেয়ার্সের রেকর্ড দ্বিশতকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঐতিহাসিক জয়

179

ইনিংস ঘোষণা করে দেওয়া নিয়ে এখন নিশ্চয়ই আফসোস করছেন মুমিনুল হক। মাঠের বাইরে বসে বসেই দলের হার দেখলেন চোটাক্রান্ত সাকিব আল হাসানও। প্রথম চারদিনই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ রাখার পরেও শেষ একদিনের খেলায় হেরে গেল বাংলাদেশ। কাইল মেয়ার্সের দ্বিশতকে ওয়েস্ট পেয়েছে ৩ উইকেটের ঐতিহাসিক জয়।

Advertisement

পঞ্চম দিনের প্রথম দুই সেশনই ওয়েস্ট ইন্ডিজ নিজেদের দখলে নিয়েছিল। দুই শতাধিক রানের জুটি গড়েন এনক্রুমাহ বনার ও কাইল মেয়ার্স। আঙুলে আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়েন অধিনায়ক মুমিনুল হক। হাতে ব্যথা পেয়ে আগের দিন মাঠ ছাড়া তামিম ইকবাল মাঠে ফেরেন অধিনায়ক করতে। অবশ্য কয়েক ওভার পরেই মাঠে ফেরেন তিনি এবং তামিমও কিছুক্ষণ পরে আবার মাঠ ছাড়েন।

চা বিরতির সময়ে দলের সাথে আলোচনা করতে দেখা যায় সাকিবকে। চা বিরতির পরেও মেহেদী হাসান মিরাজকে নির্দেশনা দিচ্ছিলেন তিনি। চা-বিরতির পরে মাঠে নেমেই আক্রমণাত্মক ব্যাটিং শুরু করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

তাইজুল ইসলামের বলে ছয় মারার পরেই এলবিডব্লিউয়ের শিকার হন বনার। ফেরার আগে তিনি করেন ২৪৫ বলে ৮৬ রান। ভেঙে যায় ২১৬ রানের জুটি। বনার ফেরার পরে মাঠে নামেন জার্মেইন ব্ল্যাকউড। তিনিও আক্রমণাত্মক খেলার প্রবণতা দেখান। ডাউন দ্য উইকেটে এসে নাঈম হাসানকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে বোল্ড হন তিনি। ২৯২ রানে ৫ উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

তবে মেয়ার্স ঠিকই এগিয়ে নিতে থাকেন দলকে। ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্টেই প্রথম সেঞ্চুরিকে ডাবল সেঞ্চুরিতে পরিণত করেন তিনি। অপরপ্রান্তে দলকে জয়ের বন্দরে রেখে আউট হন জসুয়া ডা সিলভা। তারপর ক্রিজে আসেন কেমার রোচ। দুই দলের স্কোর সমান করে মিরাজের শিকার হন তিনি।

তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়েন মেয়ার্স। ২ ওভার ও ৪ উইকেট হাতে রেখে জয় নিশ্চিত করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ করেছিল ৪৩০ রান। সেঞ্চুরি করেছিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন সাদমান ইসলাম ও সাকিব আল হাসান। জবাবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অলআউট হয়েছিল ২৫৯ রানে।

দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশ ৮ উইকেটে ২২৩ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে। এই ইনিংসে সেঞ্চুরি করেছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। দ্বিতীয় দিনের পরে সাকিব আল হাসান আর মাঠে নামতে পারেননি।

টস : বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ৪৩০/৭ (১ম ইনিংস)
মিরাজ ১০৩, সাকিব ৬৮, সাদমান ৫৯, লিটন ৩৮, মুশফিক ৩৮, মুমিনুল ২৬, শান্ত ২৫, নাঈম ২৪, তামিম ৯;
ওয়ারিকান ৪/১৩৩, কর্নওয়াল ২/১১৪, বনার ১/১৬, রোচ ১/৬০, গ্যাব্রিয়েল ১/৬৯।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২৫৯/১০ (৯৬.১ ওভার)
ব্রাথওয়েট ৭৬, ব্ল্যাকউড ৬৮, জসুয়া ৪২, মেয়ার্স ৪০, বনার ১৭, জসুয়া ১২*;
মিরাজ ৪/৫৮, মুস্তাফিজ ২/৪৬, নাঈম ২/৫৪, তাইজুল ২/৮৪।

বাংলাদেশ ২২৩/৮ (৬৭.৫ ওভার- ইনিংস ঘোষণা)
মুমিনুল ১১৫, লিটন ৬৯, মুশফিক ১৮, সাদমান ৫, তামিম ০, শান্ত ০;
ওয়ারিকান ৩/৫৭, কর্নওয়াল ৩/৮১, গ্যাব্রিয়েল ২/৩৭।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩৯৫/৭ (৯৭ ওভার)
মেয়ার্স ২১০*, বনার ৮৬, ক্যাম্পবেল ২৩, ব্রাথওয়েট ২০;
মিরাজ ৪/১১৩, তাইজুল ২/৯১।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩ উইকেটে জয়ী।

Advertisement