কাপ্তাই হ্রদে মাছ শিকারে ৩ মাসের নিষেধাজ্ঞা

18

কার্প জাতীয় মাছের বংশবিস্তার ও প্রাকৃতিক প্রজনন নিশ্চিতকরণে প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও আগামী ২৫ এপ্রিল থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত তিন মাস দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম হ্রদ কাপ্তাই হ্রদে সব ধরনের মাছ আহরণ, বাজারজাত ও পরিবহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

Advertisement

বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) বিকেলে রাঙামাটি জেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত কাপ্তাই লেকে মৎস্য আহরণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ সংক্রান্ত সভায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোশারফ হোসেন খান এই সিদ্ধান্তের কথা জানান।

কার্প জাতীয় মাছের বংশবৃদ্ধি, হ্রদে অবমুক্ত করা পোনা মাছের সুষ্ঠু বৃদ্ধি, মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন নিশ্চিতকরণসহ হ্রদের প্রাকৃতিক পরিবেশ মৎস্য সম্পদ বৃদ্ধির সহায়ক হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষে এই নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে।

সভায় জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোশারফ হোসেন খানের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফডিসি) রাঙামাটি অঞ্চলের ব্যবস্থাপক কমান্ডার মো. আশরাফুল আলম ভূঁইয়া, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা অধীর চন্দ্র দাশ, বিএফডিসি’র ফিশ কলেচারিস্ট মো. ইসমাইল হোসেন, নৌ পুলিশের পুলিশ পরিদর্শক শেখ মোহাম্মদ এহতেশামুল ইসলাম, রাঙামাটি মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি উদয়ন বড়ুয়া, বৃহত্তর বনরুপা ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি মো. আবু সৈয়দসহ মৎস্য ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ।

বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফডিসি) রাঙামাটি অঞ্চলের ব্যবস্থাপক কমান্ডার মো. আশরাফুল আলম ভূঁইয়া বলেন, গত বছর এই সময়ে আমাদের বিএফডিসি ঘাটে মাছ অবতরণ হয়েছিল ৫৩৮৯ মেট্রিক টন। আর এই বছর গতকাল (বুধবার) পর্যন্ত আমাদের মাছ অবতরণ হয়েছে ৭৫০৮ মেট্রিক টন। আমরা যদি মাছের প্রজননটা শৃঙ্খলার মধ্যে রাখতে পারি তবে এই উৎপাদন আরও বৃদ্ধি পাবে। গত বছর লেক বন্ধ থাকাকালীন সময়ে অবৈধ মাছ শিকারের বিরুদ্ধে প্রায় ১ হাজারটি অভিযান পরিচালনা করেছিলাম আমরা। এ বছরও সেটি অব্যাহত থাকবে। মাছ শিকার বন্ধথাকালীন সময়ে অবৈধভাবে মাছ শিকার পরিবহন ও বাজারজাতকরণ না করার জন্য তিনি মৎস্য ব্যবসায়ী, পরিবহন ও বাজার সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ করেন।

রাঙামাটির জেল প্রশাসক মোহাম্মদ মোশারফ হোসেন খান বলেন, শুধুমাত্র মৎস্য সম্পদের জন্যই নয়, পর্যটন খাত, বিদ্যুৎ খাতসহ বিভিন্ন কারণে কাপ্তাই হ্রদ আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি সম্পদ। কাপ্তাই হ্রদে কার্প প্রজাতির মা মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন নিশ্চিত করার জন্য ডিম ছাড়ার মৌসুমে মাছ ধরা বন্ধ রাখা প্রয়োজন। তাই কার্প জাতীয় মাছের বংশবৃদ্ধি, হ্রদে অবমুক্ত করা পোনা মাছের সুষ্ঠু বৃদ্ধি, মাছের প্রাকৃতিক নিশ্চিতকরণে ২৫ এপ্রিল থেকে ২৪ জুলাই পর্যন্ত আগামী তিনমাস কাপ্তাই হ্রদে মৎস্য আহরণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হলো। মাছ শিকার বন্ধে নৌ পুলিশের পাশাপাশি জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ টিমও কাজ করে যাবে। এসময় কেউ হ্রদে মৎস্য আহরণ করলে অপরাধ অনুযায়ী তাকে দণ্ড দেয়া হবে। এ সময় মাছ শিকার বন্ধে কাপ্তাই হ্রদে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে এবং স্থানীয় বরফ কলগুলোও বন্ধ থাকবে বলে জানান তিনি।

Advertisement