মধ্যরাতে রাতে আনোয়ারায় পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর-গোলাগুলি, হ্যান্ডকাপসহ আসামি ছিনতাই

34

চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলায় মধ্যরাতে পুলিশের উপর হামলা হয়েছে। কর্ণফুলী থানা পুলিশ আনোয়ারার চাতরী চৌমুহনী এলাকায় আসামি ধরতে গেলে হামলার ঘটনা ঘটে।

Advertisement

হামলায় আহত হয়েছেন কর্ণফুলী থানার ওসিসহ আরও ৫ পুলিশ সদস্য। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ফাঁকা গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এসময় পুলিশের কাছ থেকে আসামিকেও ছিনিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

শনিবার (৮ জুন) রাত ১১টার ১০ মিনিটের দিকে ঘটনার সূত্রপাত হয়।

জানা গেছে, শুক্রবার বিকেলে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলায় বাজেট পরবর্তী স্বাগত মিছিলকে কেন্দ্র করে সাবেক ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জান চৌধুরী জাবেদ ও বর্তমান অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খানের অনুসারীদের মাঝে সংঘর্ষে ঘটনা ঘটে। এতে আনোয়ারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক ভূমিমন্ত্রীর অনুসারী এম এ মান্নান চৌধুরীসহ ৬ জন আহত হন।

এ ঘটনায় শনিবার (৮ জুন) কর্ণফুলী থানার মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলার আসামি মো. মোজাম্মেল হক ওরফে গাছ মোজাম্মেল। তিনি অর্থ প্রতিমন্ত্রী ওয়াসিকা আয়শা খানের অনুসারী হিসেবে পরিচিত। মূলত তাকে গ্রেপ্তার করতে গিয়েছিল পুলিশ। ওই সময় পুলিশের কাছ থেকে গাছ মোজাম্মেলকে ছিনিয়ে নেয় তার অনুসারীরা। এতে কর্ণফুলী থানায় ওসি ও আনোয়ারা থানার ৪ সদস্য আহত হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় পর শত শত লোকের জামায়েত দিয়ে মিছিল করছে মোজাম্মেলের সমর্থকেরা। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ১৮ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। এখনও ওই এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

আনোয়ারা সার্কেলের সহকারী পুলিশ কমিশনার সোহানুর রহমান সোহাগ বলেন, ‘গতকালের ঘটনায় কর্ণফুলী থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। মামলার আসামি মোজাম্মেলকে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশের উপর হামলা হয়েছে এবং ওই আসামিকে ছিনিয়ে নিয়ে গেছে তারা।’

তিনি বলেন, ‘হামলায় কর্ণফুলী থানার ওসি ও আনোয়ারা থানার ৪ সদস্য আহত হয়েছে। ওসিকে চট্টগ্রাম মেডিকেলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ১৮ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনা হয়েছে।’

এর আগে শুক্রবার (৭ জুন) বন্দর সেন্টার এলাকায় বিকেল সাড়ে ৫টার সময় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে দুই পক্ষের মধ্যে। ওইদিন বিকেল ৩টা থেকে বাজেট পরবর্তী স্বাগত মিছিল করার জন্য উভয় পক্ষের নেতাকর্মীরা জড়ো হতে থাকেন।

এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের ব্যারিকেট থাকলেও দুপক্ষ সংঘর্ষে জড়ায়। এতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিসহ অন্তত ৮ জন আহত হয়।

Advertisement