৪ উপজেলায় ২৫০ পরিবার পাচ্ছে জমিসহ ঘরের মালিকানা

আগামীকাল চট্টগ্রাম জেলাকে সম্পূর্ণভাবে ভূমি ও গৃহহীন ঘোষনা করবেন প্রধানমন্ত্রী

35

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক (ডিসি) আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেছেন, পবিত্র ঈদ-উল আযহার আগেই আগামীকাল ১১ জুন মঙ্গলবার সকাল ১১টায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক চট্টগ্রাম জেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীন ৫ম পর্যায়ের (২য় ধাপ) ২৩৪টি ও জরাজীর্ণ ব্যারাক প্রতিস্থাপন করে ১৬টি একক গৃহ নির্মাণসহ মোট ২৫০টি পরিবারকে ২ শতাংশ জমিসহ ঘরের মালিকানার দলিল হস্তান্তর কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন। এই ২ শতাংশ জমিসহ ঘরের মালিক হবেন স্বামী-স্ত্রী। অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম জেলার চন্দনাইশ, মীরসরাই, সীতাকুন্ড এবং সন্ধীপ উপজেলা ভার্চুয়ালি সংযুক্ত থাকবে।

Advertisement

অনুষ্ঠানে উক্ত তিনটি উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হবে এবং একই সাথে এ জেলাকেও ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ, নদী ভাঙ্গনের কারণে কেউ ভূমি-গৃহহীন হয়ে যায় বা উদ্বাস্তু হওয়ার তথ্য পেলে তাদেরকে ও ২ শতাংশ জমিসহ ঘর দেয়া হবে। ছিন্নমূল মানুষদের পুনর্বাসনের মাধ্যমে অন্তর্ভূক্তিমূলক উন্নয়নে শেখ হাসিনা মডেল তথা আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প বাস্তবায়নে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন বদ্ধ পরিকর।

আজ ১০ জুন সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত প্রেস কনফারেন্সে লিখিত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আবদুল মালেক, আরডিসি পান্না আক্তার সিনিয়র সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রাজীব হোসেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফারহানুর রহমান, স্টাফ অফিসার টু ডিসি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ফাহমুন নবী এসময় উপস্থিত ছিলেন।

তিনি বলেন, ৫ম পর্যায়ে এ পর্যন্ত ৩৮৮ ঘরের বরাদ্দ পাওয়া গেছে। তন্মধ্যে বিগত ১৪ নভেম্বর ২০২৩ তারিখে ৮১টি পরিবারকে গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রম মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক উদ্বোধন করা হয় এবং উক্ত পরিবারসমূহকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। ২৩৪ টি (চন্দনাইশ-১৫৫টি, মীরসরাই-৩৪টি ও সীতাকুন্ড-৪৫টি) পরিবারকে গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রম মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক আগামীকাল ১১ জুন মঙ্গলবার উদ্বোধন করা হবে। মীরসরাই উপজেলার জন্য নতুনভাবে ৭৩টি ঘরের বরাদ্দ পাওয়া গিয়েছে। যার নির্মাণ কাজ সমাপ্তির পর্যায়ে। এছাড়াও জরাজীর্ণ ব্যারাকের স্থলে একক গৃহ নির্মাণের জন্য ১১৬টি ঘরের বরাদ্দ পাওয়া গিয়েছে। তন্মধ্যে বিগত ১৪ নভেম্বর ২০২৩ তারিখে ১০০ পরিবারকে গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রম মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক উদ্বোধন করা হয়। আগামীকাল ১১ জুন মঙ্গলবার অবশিষ্ট ১৬টি পরিবারকে গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রম মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক উদ্বোধন করা হবে।

জেলা প্রশাসক বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বপ্ন দেখেছিলেন ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত অসাম্প্রদায়িক একটি বাংলাদেশের। যুদ্ধ বিধ্বস্ত নবীন দেশে ১৯৭২ সালের ফেব্রæয়ারিতে নোয়াখালী সফরে গিয়ে আশ্রয়হীনদের প্রথম পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁরই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে ১ম বার সরকার গঠনের পর ১৯৯৭ সালে আশ্রয়হীনদের পুনর্বাসনের জন্য সরকারি অর্থায়নে প্রথম উদ্যোগ হিসেবে গ্রহণ করেন “আশ্রয়ণ প্রকল্প”। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীতে তাঁর সুযোগ্য কন্যা দেশের সকল ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে বাসস্থান নিশ্চিতের ঘোষণা দেন। সরকারি উদ্যোগে দেশের সকল ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ভূমি ও গৃহ প্রদানের এ নজির পৃথিবীর বুকে অনন্য।

তিনি বলেন, “মুজিব শতবর্ষে একজন লোকও গৃহহীন থাকবে না” মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের তত্ত¡াবধায়নে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের মাধ্যমে সারাদেশে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ২ শতাংশ জমিসহ সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে ঘর প্রদানের কার্যক্রম গ্রহণ করেন। তারই ধারাবাহিকতায় চট্টগ্রাম জেলায় ১ম পর্যায়ে ১৪৪৪টি ঘরের বরাদ্দ প্রদানসহ তাদেরকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। ২য় পর্যায়ে ৬৪৯টি ঘরের বরাদ্দ প্রদান করা হয় এবং ৬৪৯টি পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে, ৩য় পর্যায়ে ১৯৬২টি ঘরের বরাদ্দ প্রদান করা হয় এবং ১৯৬২টি পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে, ৪র্থ পর্যায়ে ১২২৩টি ঘরের বরাদ্দ প্রদান করা হয় এবং ১২২৩টি পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। বরাদ্দপ্রাপ্ত ঘরসমূহ ইতোমধ্যে উপকারভোগীদের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে এবং উপকারভোগী পরিবারসমূহ উক্ত ঘরসমূহে বসবাস করছেন।

ডিসি বলেন, সন্ধীপ উপজেলায় নির্মাণাধীন ৪টি আশ্রয়ণ প্রকল্পের মধ্যে ৩টি আশ্রয়ণ প্রকল্প বাংলাদেশ নৌবাহিনী কর্তৃক হস্তান্তর করা হয়েছে। অবশিষ্ট ১টি আশ্রয়ণ প্রকল্প হস্তান্তর প্রক্রিয়াধীন। উক্ত প্রকল্পসমূহে ৯২৩টি পরিবারকে পুনর্বাসন করা হবে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেন, ইতোপূর্বে চট্টগ্রাম জেলার ১৫ টি উপজেলার মধ্যে ১২টি উপজেলা যথাক্রমে-পটিয়া, কর্ণফুলী, সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, রাউজান, বোয়ালখালী, আনোয়ারা, ফটিকছড়ি, হাটহাজারী, রাঙ্গুনিয়া, বাঁশখালী, মীরসরাই উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুন্ড, চন্দনাইশ ও সন্ধীপ উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করার জন্য আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প কার্যালয়ে প্রস্তাব প্রেরণ করা হয়েছে। উক্ত তিনটি উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হবে এবং একই সাথে চট্টগ্রাম জেলাকেও ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হবে।

Advertisement