ত্রিমুখী সংঘর্ষে নিহত ১৭

230

রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কে দুর্ঘটনায় গাড়িতেই পুড়ে অঙ্গার হয়েছেন ১৭ জন যাত্রী। কারও লাশ চেনার উপায় নেই। লাশের পোড়া গন্ধে সেখানকার বাতাস ভারি হয়ে গেছে।

Advertisement

রংপুর থেকে দুপুরে একটি হায়েস মাইক্রোবাসে চড়ে রাজশাহী আসছিলেন ১১ জন যাত্রী। তাদের উদ্দেশ্য রাজশাহীর শাহমখদুম (র.)-এর মাজার জিয়ারত করা। রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কে কাটাখালী থানার সামনে যখন মাইক্রোবাসটি আসে তখনই বিপরীত দিক থেকে আসা একটি বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। মাইক্রোবাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাশে দাঁড়িয়ে থাকা আরেকটি হিউম্যান হলারকে (লেগুনা) ধাক্কা দেয়। এ সময় মাইক্রোবাসটির গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়।

এতে মাইক্রোবাস ও লেগুনার গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আগুনে পুড়ে মারা গেছেন ১৭ জন। তাদের মধ্যে মাইক্রোবাস থেকে ১১ যাত্রীর পোড়া লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া দগ্ধ ছয়জন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন। মাইক্রোবাস থেকে উদ্ধার ১১ লাশের কাউকে চেনা যাচ্ছে না। তবে পুলিশ জানিয়েছে, এই ১১ জনের মধ্যে ৫ জন পুরুষ, ‍৪ জন নারী ও ২ জন শিশু শনাক্ত করা হয়েছে।

অন্যদিকে রামেক হাসপাতালে মারা যাওয়া ছয়জনের মধ্যে ২ জন পুরুষ, ২ জন নারী ও দুই শিশু রয়েছে।

শুক্রবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে রাজশাহীর কাটাখালী থানার সামনে রাজশাহী-ঢাকা মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের রাজশাহী সদর স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার আবদুর রউফ এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক জানান, ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন। তবে এ পর্যন্ত ১৭ জন নিহত হয়েছেন বলে আমরা জেনেছি। নিহতদের মধ্যে কয়েকজনের লাশ শনাক্ত করা যায়নি।

Advertisement